১৬ বছর বয়সে প্রথম যৌন নিগ্রহের কবলে পড়েন কঙ্গনা

১৬ বছর বয়সে যৌন নিগ্রহের কবলে পড়েছিলেন সেলুলয়েডের ‘ঝাঁসির রানি’ অর্থাৎ কঙ্গনা রানাওয়াত। স্বজনপোষণ হোক কিংবা #মিটু, বলিউড থেকে একটা আওয়াজ বরাবর সোচ্চার। সেটা হল কঙ্গনা রানাওয়াতের প্রতিবাদী কণ্ঠ। নারীর স্বাধিকারে বিশ্বাসী এই অভিনেত্রী আপাতত ‘মণিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি’র প্রচারে ব্যস্ত। তার মধ্যেই হায়দরাবাদে সাংবাদিকদের শোনালেন তার কিশোরী বয়সের সেই দুর্ভাগ্যজনক কাহিনি।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, কঙ্গনা যখন ১৬ বছরের, তখন তিনি প্রথম যৌন নিগ্রহের অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। ছবির প্রচারের ফাঁকে এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমার তখন ১৬ বছর বয়স, সে সময় আমি থানায় প্রথম যৌন নিগ্রহের অভিযোগ দায়ের করেছিলাম।’ তার মতে, সমাজে এমন অনেকে আছেন যারা প্রতিবাদী। তাই আমাদের উচিত তাদের নিরুৎসাহিত না করে পাশে দাঁড়ানো।

নারী স্বনির্ভরতার প্রসঙ্গে তার অবস্থান: বিষয়টি সকলের জন্য নয়। তবে যারা স্বনির্ভর হতে চান, তাদের হতে দেওয়া উচিত। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলোর উচিত সবসময় পিছনে থেকে তাদের শক্তি জোগানো।

‘মণিকর্ণিকা’ ছবিতে রানি লক্ষ্মীবাঈয়ের চরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি এ ছবির অন্যতম নির্দেশক তিনি। পরিচালক হিসেবে এটাই তার প্রথম কাজ কি? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘খুব ছোট থেকে তিনি ক্যামেরার পিছনে কাজ করছেন। তার প্রথম কাজ বলতে একটা ১০ মিনিটের স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি। যাতে অনেক আন্তর্জাতিক কলাকুশলীর সান্নিধ্য তিনি পেয়েছিলেন। পাশাপাশি,সিনেমাটোগ্রাফি, সম্পাদনার মতো কাজও এ যাবৎকাল তিনি করেছেন। চলতি মাসের ২৫ তারিখ মুক্তি পাচ্ছে ‘মণিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি’। বহু প্রতীক্ষিত এই ছবি দর্শক মনে কতটা জায়গা করে, তার জন্য আর ২০ দিনের অপেক্ষা।