সাবেক পৌর কমিশনারের মেয়েকে গোপনে বিয়ে করে পলাতক যুবক, থানায় মামলা

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় সাবেক পৌর কমিশনারের কন্যা তাহমিদা ইসলামকে নিয়ে পালিয়েছে মোঃ শহিদুল ইসলাম (৩৩) নামে এক যুবক। গত ১৭ এপ্রিল বুধবার জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় এই ঘটনা ঘটে। পলাতক মোঃ শহীদুল ইসলাম একই জেলার চন্দনাইশ পৌরসভার গাছবাড়ীয়া এলাকার মোঃ সিরাজুল ইসলামের পুত্র। মেয়ের বাবার অভিযোগ, পলাতক মোঃ শহীদুল ইসলাম নিজেকে ধনাঢ্য পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়ে তাহমিদা ইসলামের সাথে ফেসবুকে প্রেম করে আসছিল। যা সম্পূর্ণ আমাদের অগোচরে ছিল। শুধু তাই নয়, আমার মেয়ে (তাহমিদা ইসলাম) কে অর্থের লোভ দেখিয়ে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে শহীদুল।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, আমি একজন কমিশনার (সাবেক) ও আওয়ামী লীগ ঘরনার লোক। তাই আমার রাজনৈতিক আদর্শ ও অবস্থানকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে আমার মেয়েকে গোপনে বিয়ে করে। শুধু এতেই থেমে থাকেনি শহীদুল। আমাকে প্রতিনিয়ত বিয়ে মেনে নিতে চাপ প্রয়োগ করে, এমনটাই অভিযোগ করেন দীর্ঘ ৯ বৎসর কমিশনারের দায়িত্বে পালন করা মোঃ মফিজুল ইসলাম।

এই ঘটনায় রাঙ্গুনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে কথা বলে জানা যায়, পলাতক মোঃ শহীদুল ইসলামের বিরুদ্ধে গত ১৮ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন তাহমিদা ইসলামের পরিবার। তাই ঘটনার তদন্তে শহীদুল ইসলামকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

তথ্যমতে, পূর্বের একটি মামলায় দীর্ঘদিন জেলের পর জামিনে থাকা এবং পরে ২০১৮ সালে নির্বাচন পূর্ব গায়েবী মামলার অন্যতম পলাতক আসামী শহীদুল ইসলাম গ্রেপ্তার এড়াতে তাহমিদা ইসলামসহ বর্তমানে পালিয়ে আত্মগোপনে আছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শহীদুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, তাহমিদা ইসলামকে দেশের আইন অনুযায়ী তিনি বিয়ে করেছেন। পলাতক শহীদুল ইসলামের আরো দাবি করেন তার শশুরের লেলিয়ে দেওয়া সন্ত্রাসী তাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে চারদিকে খুঁজতে থাকায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলেই তিনি তার স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। শুধু তাই নয়, তাহমিদার পরিবার থেকে প্রতিনিয়ত জীবননাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন শহীদুল।
উল্লেখ্য, পলাতক শহীদুল ইসলাম বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। তার বিরুদ্ধে মিছিল মিটিংসহ বিভিন্ন সরকার বিরোধী ও নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার অভিযোগ রয়েছে। তাহমিদা ইসলামের পরিবার শহীদুল ইসলামকে দেখা মাত্রই স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে জানানোর অনুরোধ করেছেন।