বসতঘরেই বৃদ্ধের গলাকাটা লাশ

চট্টলানিউজ, চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামে আবুল কাশেম (৬০) নামে এক বৃদ্ধ খুন হয়েছেন তার শয়নকক্ষে। জেলার ফটিকছড়ি উপজেলার পৌরসভাধীন ৬ নং ওয়ার্ডে নিজ ঘরে থেকে বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে সাতটায় পুলিশ তার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেছে। এরআগে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তিনি খুন হন। তবে কিভাবে খুন হয়েছেন বা কারা এই খুন করেছে তা নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে। ফটিকছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বাবুল আকতার এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, বৃদ্ধকে খাটের উপরে গলাকাটা অবস্থায় পাওয়া গেছে। ওই ঘরে বৃদ্ধের মেয়েও ছিলো। তাছাড়া পার্শ্ববর্তী ঘরে আরো লোক ছিল।

ওসি জানায়, পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, বৃদ্ধ মানসিক রোগী, তিনি নিজের গলা নিজেই কেটেছেন। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেন ওসি।

বৃদ্ধের কিশোরী কন্যা কামরুন নাহার বলেন, আসরের নামাজের সময় বাবা আমাকে চা দিতে বললেন। আমি চা তৈরি করতে রান্না ঘরে যাই। এর কিছুক্ষণ পর একটি শব্দ শুনে দৌড়ে ঘরের সামনের রুমে যেতেই দেখি বাবা গলাকাটা অবস্থায় পরে আছেন। এবং তার হাতে রক্তাক্ত ছুরি।

ওই সময় বাবার হাত থেকে ছুরিটি কেড়ে নিয়েই পার্শ্ববর্তী ঘর থেকে চাচিকে ডেকে নিয়ে আসি। এরপর চাচিসহ আমরা দু’জনে বাবাকে বাঁচাতে হাসপাতালে নেয়ার জন্য তোলার চেষ্টা করি। কিন্তু ততক্ষণে বাবা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

নিহতের বড় ছেলে আবু বকর বলেন, বাবা দীর্ঘদিন মানসিক রোগে ভুগছিলেন। তাকে বেশ কয়েকবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপতালে চিকিৎসা করানো হয়েছে। মৃত্যুর আগেও তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

আবু বকর আরও জানান, তার বাবা আবুল কাশেম চট্টগ্রাম মহানগরের আকবর শাহ থানার পাহাড়তলী এলাকায় একটি বাসার নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে চাকরি করতেন। এক সময় তিনি চাকরি ছেড়ে বাড়িতে চলে আসেন।

প্রতিবেশিরা জানান, আসরের আজানের সময় হঠাৎ কান্না আর আত্মচিৎকার শুনে প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসেন। ওই সময় বৃদ্ধ আবুল কাশেমের লাশ খাটের উপর লম্বাকারে শোয়ানো দেখতে পান। বৃদ্ধের গলার অনেকাংশ কেটে রক্তে চার দিকের বিছানা ভিজে গেছে। পরে পুলিশকে খবর দিলে রাত সাড়ে সাতটার দিকে এসে লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।