জানুয়ারিতে কয়েক দফা শৈত্যপ্রবাহের আশঙ্কা

এবার শীত মৌসুমের পুরোটাই কাটবে শীতের তীব্রতায়। এর মধ্যে দেশের উপর দিয়ে পৌষ ও মাঘ মাসে দুই থেকে তিনটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলে আভাস দিয়ে রেখেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

পঞ্চগড়ে তীব্র শৈত্যপ্রবাহের মধ্যে বুধবার (০২ জানুয়ারি) চলতি মৌসুমে দেশের সর্বনিম্ন ৪.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় হিমালয় অদূরের জনপদ তেঁতুলিয়ায়।

আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস দেওয়ার জন্য গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির সভায় জানানো হয়েছে, শৈত্যপ্রবাহের অন্তত দুইটি তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন অংশে ঘন কুয়াশাও পড়তে পারে।

বিশেষজ্ঞ কমিটির নিয়মিত সভা মঙ্গলবার (০১ জানুয়ারি) আবহাওয়া অফিসের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ডিসেম্বর মাসের আবহাওয়ার বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত পর্যালোচনা করে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক ও বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন আহমেদ জানান, এ মাসে দেশে ২-৩টি মৃদু (৮-১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) থেকে মাঝারি (৬-৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে, যার মধ্যে ২টি তীব্র (৪-৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস) শৈত্যপ্রবাহে রূপ নিতে পারে।

‘এ মাসে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদ-নদী অববাহিকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা পড়তে পারে। ঘন কুয়াশা পরিস্থিতি কখনও কখনও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।’

আবহাওয়া অফিস জানায়, ডিসেম্বর মাসে সারাদেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি (+২১.৩%) বৃষ্টিপাত হয়েছে। আর কম হয়েছে চট্টগ্রাম, বরিশাল ও রংপুর বিভাগে। কিন্তু অন্যান্য বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। এ মাসে ঘূর্ণিঝড় পিথাই ১৭ ডিসেম্বর ভারতের অন্ধ্র উপকূলে আঘাত হানে। ডিসেম্বরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৫.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয় তেঁতুলিয়ায় ৩১ ডিসেম্বর।

বৃষ্টিপাত, নিম্নচাপ, কৃষি আবহাওয়া এবং দেশের নদ-নদীর অবস্থা ডিসেম্বর মাসের পূর্বাভাসের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ ছিলো। জানুয়ারি মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে।

পূর্বাভাস
সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। শেষরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও পড়তে পারে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা।

পঞ্চগড় জেলার উপর দিয়ে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। শ্রীমঙ্গল, পাবনা, নওগাঁ এবং চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলসহ রংপুর বিভাগের অবশিষ্টাংশের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

দিনাজপুরে ৭.৫, ডিমলায় ২, সৈয়দপুরে ৮.২, রাজারহাটে ৮.৬, বদলগাছীতে ৯, ঈশ্বরদীতে ৯.৭ ডিগ্রি ছাড়াও বিভাগীয় শহরগুলো রংপুরে ১০, ময়মনসিংহে ১০.১, রাজশাহীতে ১০.৬, বরিশালে ১১, খুলনায় ১২.৪, সিলেটে ১২.৯, ঢাকায় ১৩.৭, চট্টগ্রামে ১৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, এ মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪.৯ ডিগ্রি, যা বুধবারই রেকর্ড করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বিদ্যমান অবস্থা তিন-চারদিন অব্যাহত থাকবে। শৈত্যপ্রবাহ দেশের মধ্যাঞ্চলে এলেও যানবাহন চলাচল ও ঊঁচু ভবনের কারণে ঢাকায় তাপমাত্রা খুব বেশি কমবে না। এর আগে ঢাকায় গত ২৯ ডিসেম্বর ১১.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার অবস্থায় বলা হয়, এই সময়ে রাতের তাপমাত্রা হ্রাস পেতে পারে।