কথা বলছেন কাদের, কেবিনে নেয়া হবে সোমবার

ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অনেকটাই সেরে উঠেছেন। চিকিৎসক ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে কথা বলেছেন। আগামীকাল সোমবার তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (আইসিইউ) থেকে কেবিনে নেয়া হতে পারে।

সিঙ্গাপুরে তার সঙ্গে থাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ও নিউরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী রোববার সকালে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, মাউন্ট এলিজাবেথের কার্ডিওথোরাসিক সার্জন ডা. সিবাস্টিন কুমার সামি আজ সকালে ওবায়দুল কাদেরের স্বাস্থ্যের সবশেষ অবস্থা তার পরিবারের সদস্যদের জানিয়েছেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে ডা. আবু নাসার রিজভীর কথা বলার সময় উপস্থিত ছিলেন ওবায়দুল কাদেরের সহধর্মিণী বেগম ইশরাতুন্নেসা কাদের, গাজীপুরের সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, ওবায়দুল কাদেরের ছোটভাই বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জা, সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী এমপি, আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে ডা. রিজভী শনিবার জানিয়েছিলেন, সেতুমন্ত্রীর শরীর থেকে সব ধরনের কৃত্রিম যন্ত্র খুলে ফেলা হয়েছে। সবশেষ যে এন্ডোটাকিয়াটা ছিল, সেটিও শনিবার খুলে নেয়া হয়েছে।

ওবায়দুল কাদেরের হৃদযন্ত্র ও রক্তচাপ স্থিতিশীল রয়েছে এবং তার রক্তের সংক্রমণ ও কিডনির অবস্থাও নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে বলে মাউন্ট এলিজাবেথের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

৬৭ বছর বয়সী ওবায়দুল কাদের হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ছাড়াও শ্বাসতন্ত্রের জটিল রোগ সিওপিডিতে (ক্রনিক অবসট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ) ভুগছেন।

গত রোববার (৩ মার্চ) সকাল ৭টায় ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করেন ওবায়দুল কাদের। তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) কার্ডিওলজি বিভাগের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। সিসিইউর ২ নম্বর বেডে লাইফসাপোর্টে চিকিৎসা দেয়া হয় তাকে। পর দিন সোমবার উপমহাদেশের প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠির পরামর্শে ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার সিদ্ধান্ত দেয় ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় গঠিত বিএসএমএমইউর মেডিকেল বোর্ড। ওই দিনই এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে মাউন্ট এলিজাবেথে এনে ভর্তি করা হয়।